মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

যোগাযোগ ব্যবস্থা

ঘ) যোগাযোগ ব্যবস্থা

               বর্ষায় নাও হেমন্তে পাও’’ এ হচ্ছে ফেনারবাক ইউনিয়নের যোগাযোগ মাধ্যম। ত বে হেমন্তে কিছু কিছু জায়গায় রিস্কা যোগে যাতাযাত করা যায়। এছাড়া নদী পথে নেীকা যোগে বেশ কয়েকটি গ্রামের সাথে ইউনিয়নের যোগাযোগ রয়েছে.

 

  • ফেনারবাক ইউনিয়নে দুই ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে।
    1. হেমন্ত কালে এক ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা ।
    2. বর্ষ কালে আরেক ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা ।
  • হেমন্ত কালের যোগাযোগ ব্যবস্থা , হেমন্ত কালে যোগাযোগ ব্যবস্থা সমর্পকে নিন্মে বিস্তারতি আলোচনা করা হল।

ফেনারবাক ইউনিয়নের যোগাযোগ মাধ্যম বর্ননা করতে গেলে , এলাকার মুরুব্বীরা একটা প্রভাত বাক্য বলতে হয় , বর্ষায় নাও হেমন্তে পাও’’  হেমন্তে মানুষ শুধু পা দিয়ে হেটে চলা ফিরা করে না, বর্তমানে আধুনিকতার ছোয়া লেগেছে প্রত্যেকটি গ্রাম অঞ্চলে। উন্নতি হয়েছে রাস্তা ঘাট ,  উপজেলা জামালগঞ্জ সদর হইতে দুই দিকে ফেনারবাক ইউনিয়নে যাতায়েত করা   যায়। হেমন্তে জামালগঞ্জ উপজেলা হইতে শাহপুর বাঁধ হয়ে হাওর মূখী রাস্তায় লক্ষীপুর বাজার পর্যন্ত অটো গাড়ি, টমটম, লেগুনা ও মটরসাইকেলে যাতায়ত করা যায়। জামালগঞ্জ সদর হইতে লক্ষীপুর বাজার পর্যন্ত অটো গাড়ি, টমটম, লেগুনা (ভাড়া বাবদ ) ৩০ টাকা, এবং মটরসাইকেল ১০০টাকা। লক্ষীপুর  বাজার হইতে কিছু কিছু গ্রামে পায়ে হেটে যাতায়ত করা যায়।

অন্যদিকে জামালগঞ্জ উপজেলা হইতে নয়াহালট রাস্তা হয়ে নদী বর্তী গ্রাম গুলিতে গজারিয়া বাজার পর্যন্ত  মটরসাইকেল, সি এন জি, দ্বারা যাতায়ত করা যায়। এছাড়া নদী পথে নেীকা যোগে বেশ কয়েকটি গ্রামের সাথে ইউনিয়নের যোগাযোগ রয়েছে। জামালগঞ্জ সদর হইতে গজারিয়া  বাজার পর্যন্ত মটরসাইকেল ভাড়া ১০০ টাকা, সি এন জি বাড়া ৬০ টাকা, এবং নৌকা পথে ভাড়া ৪০ টাকা। গজারিয়া বাজার হইতে কিছু কিছু গ্রামে পায়ে হেটে এবং নৌকায় যাতায়ত করা যায়।

 

  • বর্ষা কালের যোগাযোগ ব্যবস্থা । বর্ষা কালের যোগাযোগ ব্যবস্থা সমর্পকে নিন্মে বিস্তারতি আলোচনা করা হল।

জামালগঞ্জ উপজেলা হইতে লক্ষীপুর বাজার পর্যন্ত যোগাযোগের এক মাত্র মাধ্যম হল নৌকা, দুই দিক থেকে নৌকার  মাধ্যমে মানুষ হাওর মূখী  গ্রাম গুলিত যোগাযোগ করে থাকে, ১। নয়াহালট নৌকা ঘাট , ২। কারেন্টের বাজার নৌকা ঘাট।

নয়াহালট নৌকা ঘাট হইতে লক্ষীপুর বাজার পর্যন্ত ভাড়া ২০ টাকা, এবং জামালগঞ্জ উপজেলা হইতে কারেন্টের বাজার নৌকা ঘাট যায়তে অটোর ভাড়া ১৫ টাকা , সেখান থেকে নৌকায় লক্ষীপুর বাজার  পর্যন্ত ভাড়া ২০ টাকা। লক্ষীপুর বাজার হইতে বিভিন্ন গ্রামে নৌকা দ্বারা য়োগাযোগ ও যাতায়ত করা হয়।

অন্যদিকে জামালগঞ্জ উপজেলা হইতে নয়াহালট রাস্তা হয়ে নদী বর্তী গ্রাম গুলিতে গজারিয়া বাজার পর্যন্ত  মটরসাইকেল, সি এন জি, দ্বারা যাতায়ত করা যায়। এছাড়া নদী পথে নেীকা যোগে বেশ কয়েকটি গ্রামের সাথে ইউনিয়নের যোগাযোগ রয়েছে। জামালগঞ্জ সদর হইতে গজারিয়া  বাজার পর্যন্ত মটরসাইকেল ভাড়া ১০০ টাকা, সি এন জি বাড়া ৬০ টাকা, এবং নৌকা পথে ভাড়া ৪০ টাকা। গজারিয়া বাজার হইতে কিছু কিছু গ্রামে  নৌকায় যাতায়ত করা যায়।

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter